সোস্যাল মিডিয়া ডিজাইন বা সোস্যাল ব্রান্ডিং – ক্রিয়েটিভ ডিজাইন

যারা টুকটাক গ্রাফিক্সের কাজ জানেন তাদের জন্য সোস্যাল মিডিয়া ডিজাইন বা সোস্যাল ব্রান্ডিং এর কাজের কিছু সুযোগ আছে বা কেউ চাইলে চেস্টা করতে পারেন।
যেমনঃ
একঃ কোন কম্পানী বা ব্রান্ডের এর লোগ এর সাথে ম্যাচ করে টুইটার এর জন্য ব্যাকগ্রাউন্ড ডিজাইন, টুইটার এর অন্যান্য কালার কম্বিনেশন সেট করে দেওয়া।

দুইঃ এখন অনেকেই ফেসবুকের টাইমলাইনের উপরে বড় ছবি আলাদা করে ব্রান্ডিং করার জন্য বানায়।

তিনঃ ফেসবুক ফ্যান পেজের জন্য ব্রান্ড অনুসারে বাম পাশের প্রোফাইল পিকচার তৈরি করে দেওয়া।

চারঃ ইউটিউব এর চ্যানেল ডিজাইন বা ব্রান্ডিং করে দেওয়া।

এই রকম আরো অনেক কাজ পাওয়া যেতে পারে। আপনি স্যাম্পল হিসাবে আপনার নিজের জন্য এই ধরনের কিছু কাজ করে আপনার সাইটে সেই কাজের নমুনা দিয়ে রাখতে পারেন। আমার মনে হয় গ্রামের হাটে আপনি একা টাই স্যুট পড়ে ডেস্টিনির প্রচার না করে নিজের ক্ষুদ্র জ্ঞান বা অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়েও “সোস্যাল মিডিয়া ডিজাইন বা সোস্যাল ব্রান্ডিং” বা এই ধরনের ছোট ছোট কিন্ত ইনোভেটিভ কাজ করেও ঘরে বসে ‘পরিশ্রম করে’ সহজে আয় করতে পারেন।

আইডিয়াটা হয়তো কমন কিন্তু মাথায় আসলো তাই সবার সাথে শেয়ার করলাম। আর যারা শুধু ওয়েব সাইট ডিজাইন(ফটোশপ) করেন তারা চাইলে আস্তে আস্তে ক্রিয়েটিভ ডিজাইন লাইনে আসতে পারেন যার প্রথম পদক্ষেপ হতে পারে সোস্যাল মিডিয়া ব্রান্ডিং, এরপর লোড ডিজাইন, ব্রোশিয়ার ডিজাইন ইত্যাদি। আর কিছুদিন পর টুইটার ব্রান্ড পেজ অপশন সবার জন্য উন্মুক্ত করে দেবে তখন আরো এই ধরনের টুইটার ব্রান্ডিং এর সুযোগ আসবে, একই ভাবে নিশ্চয় গুগল প্লাস তাদের ব্রান্ড পেজে আরো অপশন যুক্ত করবে যা দিয়ে যে কেউ তার ব্রান্ড পেজ এর চেহারা পরিবর্তন করতে পারবে আর এই কাজে ক্রিয়েটিভ ডিজাইনদের ডাক আগে পড়বে।

ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *