Category: Bangla Blogs

প্রিয় গানঃ ওগো আগুন মেয়ে …প্রযত্নে- মহীনের ঘোড়াগুলি

মহীনের ঘোড়াগুলি ব্যান্ডের অনেক অসাধারণ গানের এই গানটা যেন মনের ভেতর সব সময় একটা হা-হুতাশ জাগায়, ভারীক্কি একটা শূন্যতার সৃষ্টি করে। এই গানটা নিয়ে মনে হয় ফেসবুকে অনেকবার নিজেও লিখেছি গুগলে সার্চ দিয়ে নিজের একটা স্টাটাস পেলাম এখানে

ওই দূরে ঝরণার পায়ে গহীন বনের নীল ছায়ে আহা কত দিন
ওই দূরে ঝরণার পায়ে গহীন বনের নীল ছায়ে আহা কত দিন
এমনি কুয়াশা ভরা রাতে এমনি শিশিরভেজা পথে বলেছিল সে
এমনি কুয়াশা ভরা রাতে এমনি শিশিরভেজা পথে বলেছিল সে
ওগো ফাগুন ছেলে নতুন পাতার দিনে ফিরে এসো এই গাঁয়ে দুখী দিন ফেলে
ওগো ফাগুন ছেলে নতুন পাতার দিনে ফিরে এসো এই গাঁয়ে দুখী দিন ফেলে
অবাক আমি তাকে বলি কঠিন পথের বাঁকে চলি আমি চিরদিন
অবাক আমি তাকে বলি কঠিন পথের বাঁকে চলি আমি চিরদিন
অনেক মানুষ নিয়ে সাথে সুখি দিনের ইশারাতে আমি চলেছি
অনেক মানুষ নিয়ে সাথে সুখি দিনের ইশারাতে আমি চলেছি
ওগো আগুন মেয়ে তুমিও চল না সাথে আমার প্রিয় মন এসো অলস নীড় ফেলে
ওগো ফাগুন ছেলে নতুন পাতার দিনে ফিরে এসো এই গাঁয়ে দুখী দিন ফেলে
ওগো আগুন মেয়ে তুমিও চল না সাথে আমার প্রিয় মন এসো অলস নীড় ফেলে
ওগো ফাগুন ছেলে নতুন পাতার দিনে ফিরে এসো এই গাঁয়ে দুখী দিন ফেলে।

(প্রযত্নে: মহীনের ঘোড়াগুলি)

‘অনন্ত জলিলকে নিয়ে ড: আসিফ নজরুল স্যার এর ভাবনা’ নিয়ে আমার কিঞ্চিৎ ভাবনা

গত শনিবারে প্রথম আলোতে ড: আসিফ নজরুল স্যার  একটা দারুন লেখা ছিল। লেখার শিরোনাম “অনন্ত জলিল: কিছু আত্মজিজ্ঞাসা” http://www.prothom-alo.com/home/article/52904 আমার কাছে মনে হয়েছে স্যার আর লেখায় অপূর্ণতা রয়ে গেছে।

এটা আত্মজিজ্ঞাসা না বলে আত্মসমালোচনা বলা যেতে পারে। আর কেন অপূর্ণ রয়ে গেছে তার কারণ উনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, রাত হলে উনি চ্যানেলে চ্যানেলে টক শো কাপিয়ে বেড়ান। উনি শুধু জিজ্ঞাসা করবেন কিংবা সমালোচনা করবেন কিন্তু কোন সমাধান দিবেন না বা কারণগুলো খুঁজে বের করবেন না তা কিভাবে হয় বা তা কেন মেনে নেব।

আচ্ছা আমি বলতে ভুলে যাব পরে যে আমি স্যার এর লেখার সাথে একমত এবং সহমত।

কিন্তু আমার এই নোটের উদ্দেশ্য কি ?

ঐযে বল্লাম স্যার লিখেছেন হতাশার কথা, আত্মসমালোচনার কথা কিন্তু কারণ খুঁজে  দেখেছেন কিনা জানি না বা তা নিয়ে কিছু লেখেননি। অনন্ত জলিলকে নিয়ে তার প্রথম সিনেম গতি- দ্যা স্পীড (নাম ভুল হল কি ? এটাইতো প্রথম সিনেমা ?)  বের হবার পর ফেসবুকে সবাই বাংলা বলে প্রতি শব্দের পর আবার ইংলিশ লিখত, আমিও তাদের দলের ছিলাম। পরে আত্মপলব্ধি হবার পর আমি আমার চিন্তা ভাবনা উন্নত করার চেস্টার ফলস্বরুপ অনন্ত জলিলকে মজা করা বাদ দিয়েছি, তারপর অনন্ত সাহেবের আরো কয়েকটি সিনেমা বের হয়েছে। তাকে নিয়ে সমালোচনা, হাসাহাসি দিনকে দিন বেড়েই চলেছে। যারা হাসছে তারা অন্যায় করছে বা বোকার মত কাজ করছে এটা সত্য কিন্তু তারা কেন হাসছে ? কেন অনন্ত জলিলকে নিয়ে হাসছে ? কেন জলিলের ডায়লগ নিয়ে এত মজমাস্তি ?  স্যার নিশ্চয় তা ভেবে দেখেননি।আমি কিছুদিন আগে চেন্নাই এক্সপ্রেস দেখলাম, শাহরুখ খানের। পুরা সিনেমা দেখে আমি হেসেছি অনেক কারণ ওটা নিশ্চয় হাসির সিনেমা ছিল কিন্তু অনন্ত জলিল  এখন পর্যন্ত কোন হাসির সিনেমা বানাননি কিন্তু উনার প্রতিটি সিনেমা দেখে লোকজন হাসে। উনার সিনেমাতে ইনভেস্ট, ডেডিকেশন ইত্যাদি আমাকে মুগ্ধ করে, অন্তত একজন ছোট খাট  আইটি উদ্যোক্তা হিসাবে আমি ফিল করতে পারি। কিন্তু উনার সিনেমা বা উনার অভিনয় বা উনার ডায়লগ দেখে কেন আমি হাসি, কেন অন্যে হাসে  এবং কেন সবার হাসি আসা উচিৎ ? এর কারণ অনন্ত জলিল সাহেব নিজেই, হ্যাঁ সে নিজেই। কারণটা তার নিজের ভেতর এবং চাইলেই তিনি (কিন্তু আমি মনে করি তার সেই বোধদয় বা বিবেচনাবোধ নাই, এখানে আমি অসম্মান করছি না যা আমি ব্যাখ্যা করার চেস্টা করছি)  তা দূর করতে পারেন। উনার অনেক টাকা, উনার সিনেমার প্রতি অগাধ ভালোবাসা কিন্তু উনার নায়ক হবার মত যোগ্যতা কতখানি আছে তা প্রশ্নবিদ্ধ। বাস্তব জীবনে মোটা, কালো, বোকা মানুষটাও নায়ক হতে পারে কিন্তু সিনেমা হলে আমরা যায় সুদর্শন, ভালো অভিনয় জানেন এমন কাউকে নায়ক হিসাবে দেখতে। জলিল সাহেবের ইংলিশ উচ্চারণে সমস্যা উনি চাইলেই সিনেমায় ইংলিশ ডায়লগ না দিতে পারেন। উনি যদি অভিনয় ভালো না জানেন তাহলে টাকা দিয়ে ভালো অভিনয় জানেন এবং সুদর্শন কাউকে দিয়ে সিনেমা বানালেই পারেন। যেহেতু উনার টাকা আছে এবং উনিই প্রযোজক এবং উনি নিজেই নায়ক হতে চান তাই পরিশেষে উনি যা দেখান , উনি যা বানান তা অনেক উন্নত প্রযুক্তি এবং ঝকঝকা ছবি হলেও হাস্যকর হয়ে যায়। আর কিঞ্চিৎ বিবেচনাবোধ সম্পন্ন যে কারো উচিৎ হাসির দৃশ্যে হাসা ! সিনেমার নায়ক হচ্ছেন অনেকটা আইডলের মত। আমার মনে হয় আমি কি বলতে চেয়েছি তা সবাই বুঝতে পেরেছেন। উনি হাসির সিনেমা বানান না কিন্তু তা অনেকের সাথে হাস্যকর লাগে। যেহেতু উনার অনেক টাকা এবং সিনেমার প্রতি উনার অগাধ ভালোবাসা উনি চাইলেই ভালো উপন্যাস নিয়ে সিনেমা বানাতে পারেন, নিজেকে সব সময় নায়ক হিসাবে কাস্ট না করে অন্য কাউকে নিতে পারেন। ভালো কাহিনী এবং চিত্রনাট্য বানানোর জন্য মেধাবী লোক নিতে পারেন। … এটাই সমাধান।আসিফ স্যার তার লেখার ৩য় প্যারাতে বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে নিয়ে তরুন প্রজন্ম হাসাহাসি করেন এমন কিন্তু ইংগিত দিয়েছেন (যদিও উনি নাম সরাসরি উল্লেখ করেননি) কিন্তু আমার প্রশ্ন স্যার একবার নিজে ভেবে দেখেনতো যাদের নিয়ে ‘অন এভারেজ’ সবাই হাসাহাসি করে তারা কেন হাসির পাত্র হল (কিছু ব্যক্তিক্রম ছাড়া আর আমিও স্যার এর সাথে একমত যদিও)  ? আমি আবার বলছি স্যার এর সাথে আমি একমত কিন্তু আমার অনুরোধ কারণও খুঁজতে হবে এবং সমাধান এর পথও আমাদের সাজেস্ট করতে হবে না হলে শুধু সমালোচনা বা আত্মিজজ্ঞাসা মেনে নিতে কষ্ট হয় কেননা অন এভারেজ লোকজন যেমন বোকার মত হাসাহাসি করে কারণ এবং সমাধান এর পথ না বলে শুধু সমালোচনাও আমার কাছে হাস্যকর লাগে।

ধন্যবাদ,

শুভরাত্রি

বিঃ দ্রঃ আমার অনেক বানান ভুল হয় অনুগ্রহ করে যদি তা নিয়ে হাসাহাসি করার পাশাপাশি ভুলও ধরিয়ে দেন তাহলে খুশি হব যদিও আমি এটা বিশ্বাস করি কেউ হয়তো আমাকে বলতে পারেন আপনার বানান ভুল হওয়াটা ভালো দেখায় না।

ফেসবুকে নোট আকারে প্রথম প্রকাশিত।

বিশ্বাস-অবিশ্বাসের দোলাচলে এই ডিজিটাল ক্ষনজন্ম !

ফেসবুক এর স্ট্যাটাস হিসাবে পোস্টিত

আমি যদি শ্যাওলার মত ভেসে যেতে পারতাম

শ্যাওলার মত ভেসে যাওয়াকে নেগেটিভ হিসাবে দেখা হয় কিন্তু এই ব্যাপারটা নিয়ে আমার একটা খোলামেলা ফ্যান্টাসী কাজ করে। নদীতে মজা করার জন্য নৌকায় চড়েছি নড়াইলে চিত্রা নদীতে, নদীর রূপ দেখে গা গরম হয়ে যাবে এমন সেক্সি নদী চিত্রা না, আর পাঁচটা নদীর মত শীতকালে শুকিয়ে এমন কাঠ খোট্টা হয়ে যায় যে আমার পিচ্ছি ভাগ্নে ইয়ে করলে এর চেয়ে বড় পানির ধারা তৈরি হবে। যাই হোক চিত্রা নদীর সাথে আমার কোন প্রেম কোন কালেই ঘটে নাই, আর সম্ভাবনা নাই। আমার খুব আদরের আর ফ্যান্টাসীর জায়গা দখল করে নিয়েছিল নদীর স্রোতে ভেসে যাওয়া শ্যাওলা। আমার খুব ইচ্ছা করে বা করত নদীর ঠিক মাঝ বরাবর চিৎ হয়ে শুয়ে চার হাত পা ছড়িয়ে ভেসে যাওয়া(গায়ে জামাকাপড় থাকবে কিনা এটা নিয়ে চিন্তা করি নাই), অবশ্যই জোৎস্না রাতে। আমাকে আস্ত গিলে খাওয়ার জন্য আকাশে ওতপেতে থাকবে বিশাল চাঁদ। আমি শ্যাওলার মত ভেসে যেতে থাকব মহাকালের পথে, অনন্ত যাত্রা শেষ হবে না কোন দিন, রাত শেষ হবে না, জোৎস্না শেষ হবে না… সবাই যেন আমার হুকুমের জন্য ক্লান্তিহীন অপেক্ষা করবে… আমি ভেসে যেতে থাকব।

//শ্যাওলানুভূতি-১৬০৯২০১৩

আহা … আমি আমি !

এক যুগ আগে কোথায় ছিলাম মনে করতে পারি না , আমি গুনে রাখিনি।
এক যুগ পরে কোথায় যেতে চাই সেটা নিয়ে আমি ভাবি মাঝে মাঝে,
আমার ভাবনার ভেতর চলে আসে এমনি এমনি,
এই আজকের আমি কতখানি সত্যি, কতখানি বাস্তব, কতখানি অসত্য ?
আহা … আস্ত একটা আমি,
আমার ভেতরের আমি, আমার বাইরের আমি, আমি আমি !

আমার ছেলেমানুষীই আমি,
আমার পাগলামীই আমি,
আমার অভিমানই আমি, আহা… আমি আমি !
//০৯০৭২০১৩

প্রতিবেশী

বালিকা,

তোমার দারুকেশ্বর নদীর তীর ঘেঁষে এলোমেলো বৈঠা বেয়ে আমিইতো যাই
তুমি মাঝে মাঝে তাকাও আনমনে, আবার তাকাও না
বেসুরে গলায় গান গেয়ে আমিইতো বৈঠা বাই, তুমিকি শুনতে পাও না।
তোমায় ছুঁয়ে ছুঁয়ে অনেক দূরে হারিয়ে যাই, তুমি স্পর্শ টের পাও না ?

ভরা বর্ষায় যখন নদীর পানি উপচে পড়ে তখনও ছিলাম,
চৈত্রে যখন নদীর জল শুকিয়ে খাল তখনও আমি ছিলাম, তুমি খেয়াল করনি।

সেই ছোট্ট বেলায় তুমি যখন নদীর পাড়ে পুতুল খেলতে-
তখন তোমার আশেপাশে আমিই তো ঘুড়ি উড়াতাম।
তুমি দেখেছ ঘুড়ি, লাটাই হাতে আমাকে দেখনি।

নদীর তীর ঘেঁষে তোমার বসতি, আমার বসতি, আমাদের বসতি।
আমরা একে অপরের প্রতিবেশী ছিলাম, কেউ কাউকে খেয়াল করিনি।

//০৫০৭২০১৩

মানচুমাহারার দিন কাল

একঃ

‘#আবৃত্তিমেলা’ থেকে গতকাল(২১০৬২০১৩) দুইটা কবিতা আবৃত্তির সিডি কিনলাম। সকালে ল্যাপ্টপের ডিভিডি রমে ঢুকানোর পর দেখি সিডি পাচ্ছে না, আমি সিউর যে ডিভিডি রম ঠিক আছে। সাথে সাথে ধরে নিলাম আবৃত্তিমেলা আমাকে নষ্ট সিডি দিয়েছে। যেহেতু ল্যাপ্টপ রিস্টার্ট করা হয়নি(বেশির ভাগ সময় হাইবারনেট করি) তাই অনেক দিন পর রিস্টার্ট দিলাম। বুঝলাম এতক্ষন ডিভিডি রম পাচ্ছিলই না !

উপলব্ধি-২২০৬২০১৩-১ // মাঝে মাঝে সিস্টেম রিস্টার্ট দিতে হয়
উপলব্ধি-২২০৬২০১৩-২ // সামান্যতেই অন্যের উপর দোষ না চাপিয়ে ভালো করে চিন্তাভাবনা করা উচিৎ

বিঃ দ্রঃ #আসাদুজ্জামান নূরের কবিতা আবৃত্তি এই প্রথম শুনতেছি। এলব্যামের নাম ‘প্রেম ও বিদ্রোহ-১’ । ২য় যে এলব্যাম কিনেছি সেটার নাম ‘প্রেমে ও অপ্রেমে’ , আবৃত্তি করেছেন #মাহিদুলইসলাম।

প্রশ্নঃ বাজারে মাহিদুল ইসলামের কবিতার ক্যাসেটের এত ছড়াছড়ি কেন ? প্রতি তিনটা ক্যাসেট নাড়াচাড়া করলে দুইটা উনার।

দুইঃ
গতকাল(২১০৬২০১৩) কবি নির্মলেন্দু গুণের ৬৮ তম জন্ম জয়ন্তিতে কবিতা শ্রদ্ধা জানাতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অনেক গুলো কবিতা আবৃত্তি শুনলাম। বেশ ভালো লাগল।
goon

ফোন দিয়ে দূর থেকে আরো তিনটা ছবি তুলেছিলাম

তিনঃ

১৮ জুন ফেসবুকে লিখেছিলাম //

এই অসময়ের ফাগুনে যদি পোড়াও মনের আগুনে
কিংবা শেষ বিকালের রোদ্দুরে যদি ফের মনের বন্দরে
ভাসমান এই শরীরে যদি আরো একটু ভর হয়ে জম গভীরে
আমি গুম হয়ে যাব ….//

চারঃ
১৮ জুন বাবা দিবসের চিন্তাভাবনা

//চিন্তাভাবনাঃ১৮০৬২০১৩-১

বাবা দিবস থেকে শিক্ষাঃ

“বাবাকে সবাই মাথার উপর ছাদ হিসাবে চিন্তা করে, বাবা হিসাবে না !”

//উপলব্ধি-১৮০৬২০১৩-২
“যে আপনার বাবাকে আপনার মাথার উপর ছাদ মনে হবে, সেদিন আপনি ধরে নিতে পারেন আপনি বড় হয়েছেন বা দায়িত্ব নিতে শিখেছেন”

পাঁচঃ
ফেসবুকে লিখেছিলাম দাউদ হায়দারের ‘কথা ছিল’ কবিতা অনুসরণে,

কবিতার নতুন নাম হতে পারেঃ “কথা না থাকলেও”

এক বিকেলে হয়না যাওয়া
আরেক বিকেল দিচ্ছে ধাওয়া
উষ্ণ বিকেল শীতল চাওয়া
উড়িয়ে নিবে ইচ্ছের হাওয়া ।।

— মানচুমাহারা

//চিন্তাভাবনা-১৭০৬২০১৩-১

মানচুমাহারার দিনকাল

ঘুম বেশি কমালে একটা সমস্যা হয়, স্মৃতি বিভ্রাট, আমার অনেক ঘুম খুব কম হয় এবং সাম্প্রতিক অনেক কিছু মনে রাখতে পারছি না, যদিও আমার গুরুত্বপূর্ণ না হলে বা আবার জেনে নেওয়ার সুযোগ থাকলে ভুলে যাওয়ার বা মনে না রাখার একটা প্রবানতা মাস্তিষ্ক নিজে বেছে নিয়েছে ! মানুষের আসলে ৮-৯ ঘন্টা ঘুম দরকার অথবা রেস্ট(অন্তত চোখ বন্ধ করে বসে থাকা বা শুয়ে থাকা)

আর একটা সমস্যা হচ্ছে মাল্টিটাস্কিং , প্রায় খেয়াল করি অফিসে যা নিয়ে সকাল কাজ শুরু করি সেটা মাঝ খানে আর সারা দিন ধরা হয় না , দিন শেষ হবার আগে রিক্যাপ করতে গিয়ে টের পাই যে টার্গেটেই ঢুকতেই পারিনি।

মাঝে মাঝে আমার পাশে বসে কেউ কিছু বললে আমি খেয়াল করি না। মাঝে মাঝে অনেক দূরের আস্তে কথা শুনে ফেলি !(সাধু সাবধান)