in Bangla Blogs

দেশীয় ইকমার্সদের “ব্যাঙের ছাতা” সাথে তুলনা ?

Amazon বাংলাদেশে আসার খবরে অনেকে দেশীয় ইকমার্সদের “ব্যাঙের ছাতা” সাথে তুলনা করে স্ট্যাটাস দিয়েছে। বিষয়টা খুব লজ্জা জনক, তবে যাদের ব্যাঙের ছাতা বলা হচ্ছে তাদের জন্য না, যে বলছে তার জন্য লজ্জাজনক হবার কথা। একটা দেশে বড় বড় প্রতিষ্ঠানও যেমন থাকে তেমন ফুটপাথের ছোট দোকানও থাকে এটা দোষের কিছু না। তবে দেশের ভেতরের প্রতিষ্ঠান গুলোর ভেতর প্রতিযোগিতা আর বাইরের প্রতিষ্ঠানের সাথে দেশীয় প্রতিষ্ঠান এর প্রতিযোগিতা এক বিষয় না।

একটা ছোট উদাহরণ দেই, শুরুতে যখন আমাদের দেশের মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার শুরু করল তখন ফেসবুক ছিল না। দেশীয় অনেক ফোরাম, ব্লগ অনেক জনপ্রিয় ছিল। ফেসবুক আসার পর সেই সব ব্লগ, ফোরাম হারিয়ে গেছে। মিডিয়াম বর্তমানে একটা জনপ্রিয় আন্তর্জাতিক কনটেন্ট লেখা এবং পড়ার ব্লগ। আপনি যদি বেশি বেশি পড়েন তাহলে ওরা আপনাকে আটকায়ে টাকা চায়। যদি ফেসবুক না আসত বাংলাদেশে বা শুরু থেকেই যদি দেশে ফেসবুক বন্ধ করে রাখা হত তাহলে দেশীয় ব্লগ, ফোরাম গুলো আজকে অন্য জায়গায় থাকত। আমি নিজে একটা ফোরাম প্রথমে শেয়ারড, এরপর আরো একটু ভালো রিসোর্স আলা শেয়ারড, এরপর ক্লাড হোস্টিং এ নিয়েও শেষ পর্যন্ত ছাত্র অবস্থায় আর হিট সামলাতে পারি নাই। পরে যখন ফেসবুক আসল তখন মানুষের আগ্রহ এই সব ব্লগ, ফোরাম থেকে ফেসবুকের গ্রুপ গুলো আর পেজে চলে গেল। চাইলে দেশীয় এই সব ছোট ছোট উদ্যোগ গুলো ফ্রি এবং কমার্শিয়াল দুইটাই অফার করত। মিডিয়ামে নিশ্চয় কেউ কেউ টাকা দিয়ে সব আর্টিকেল পড়ার সুযোগ পায়, খোঁজ নিলে দেখা যাবে দেশীয় অনেকের প্রোএকাউন্ট আছে। এখন কিন্তু আমাদের দেশের মানুষ আন্তর্জাতিক অনেক সাইট থেকে অনলাইনে অনেক কিছু কেনে।

আমাজন আজকে যে অবস্থানে সেই অবস্থানে সে শুরুতে ছিল না। শুরুতে আমাদের দেশীয় “ব্যাঙের ছাতা” ইকমার্স এর মতই ছিল। আর হ্যাঁ আমাজনের মত অসংখ্য ইমার্স তখনও শুরু হয়েছিল আমাজন টিকে গেছে। তখন আমাজনের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী প্রতিপক্ষ ছিল না। দেশীয় “ব্যাঙের ছাতা” ইকমার্স প্রতিষ্ঠান গুলো মাত্র ডানা মেলা শুরু করেছে তাকে বটবৃক্ষ টাইপ ইকমার্সের সাথে পাল্লা দিত বলা বা কমপেয়ার করা বোকামি।

আবার কোন কোন সময় দেশীয় গন্ডি পেরিয়ে দেশীয় কম্পানীকে আন্তজার্তিক পর্যায়েও প্রতিযোগিতা করতে হয় যদি আপনার প্রডাক্ট/সার্ভিস আন্তর্জাতিক মানের হয়।

এই বিষয় গুলো নিয়ে এত দ্রুত জেনেরালাইজড মন্তব্য করা উচিৎ না। অনেক সময় দেশীয় কম্পানীগুলো সার্ভিস নিয়ে আমরা অখুশি থাকি। কিন্তু আপনি নিজে যে প্রতিষ্ঠানে সার্ভিস দিচ্ছেন সেইখানে আপনি কি করছেন বা আপনার মত অন্য জনই অন্য প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছে সে কি করে বা করছে সেইটার সার্বিক দিক বিবেচনা করলে আপনি বুঝতে পারবেন দেশীয় প্রতিষ্ঠান গুলোর সার্ভিস জাতিগত মূল্যবোধ এর সাথেও জড়িত। কেউ যখন দেশীয় ইকমার্স থেকে কিছু কিনে অখুশি হয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয় আমি বেশির ভাগ সময় মন্তব্য করি আমি খুব ভালো সার্ভিস এখন আশাই করি না, কেউ অনলাইনে কিছু বেচতেছে , ৫টা অর্ডার এর ভেতর ৩টা বাসায় সঠিক সময়ে, ২টা দেরিতে আর ১টা গরমিল করে দিতেই পারছে না এতেই আমি খুশি। কারণ আমাদের দেশীয় জাতিগত মূল্যবোধের যে জায়গাটা সেইটা ৫/৫ বা ৫/৪ এর মতও না। বরং আমাজনকে ঠেকিয়ে রেখে জাতিগত মূল্যবোধ বাড়ানোর চেস্টা করলেই হবে।

আমাদের দেশের অফলাইন মুরগির শপে কোণ ভাবেই আপনি ডিজিটাল স্কেল পাবেন না কারণ মুরগি ব্যবসায়ীর মুল্যবোধই হচ্ছে আপনাকে ঠকাবে। কতখানি ঠকাবে, এই যে ধরুন ১০০ থেকে ২৫০ গ্রাম। এক পাল্লায় দ্রুত মেপে দিবে, যদি ডিজিটাল স্কেল থাকে তাহলে স্কেলের উপর প্রচন্ড জোরে ফ্যানের বাতাস দিয়ে রাখবে। এই মূল্যবোধের সমস্যা খোঁজ নিলে দেখবেন যেখানে আমাজনের জন্ম সেখানেও ছিল, আমরা অদের থেকে অনেক বছর পিছিয়ে।

আমাদের নৈতিক মূল্যবোধের জায়গার সমস্যার কারণে অনেক দেশীয় ভালো উদ্যোগ আগাতে পারে না। ধরুন একটা ডিলের সাইট অর্ডার নিল। এখানে অনেক ভেন্ডর যুক্ত থাকে, স্টকে না থাকা সত্তেও ভেন্ডর অর্ডার নিবে, বা অর্ডার নিয়েও সঠিক পন্য দিবে না। আপনি কিন্তু ভেন্ডরকে দেখতে পাবেন না আপনি দেখতে পাবেন ডিল সাইটকে। আপনি বলতে পারেন তাহলে এই দুষ্ট ভেন্ডরকে বাদ দিলেই হয়। আমি বলব ঠগ বাছতে গাও উজার করে দিতে চান ?

Leave a Reply